Its all about blogging !

Welcome To Bloggy Time--Search The Blog--Explore--Share

4 February 2018

Change or Configure Windows IP address from Command Prompt

Its very easy to change ip address of Windows from Control Panel or by typing ncpa.cpl in run
But you can also change or configure your ip address from command prompt.You are going to need admin privileges to do this.

Go to windows search and type CMD
Right click on CMD and select Run As Administrator --> Yes

Now you are in command prompt mode. Follow below commands to change or configure ip address.

To view you ip configuration :

netsh interface ipv4 show config
To change or configure static ip address :

netsh interface ipv4 set address name="YOUR INTERFACE NAME" static IP_ADDRESS SUBNET_MASK GATEWAY
Example :-
netsh interface ipv4 set address name="Local Area Connection" static

To configure as DHCP :

netsh interface ipv4 set address name=”YOUR INTERFACE NAME” source=dhcp
To change your DNS :

netsh interface ipv4 set dns name="YOUR INTERFACE NAME" static DNS_SERVER
Example :-
netsh interface ipv4 set dns name="Local Area Connection" static

To change secondary DNS :

netsh interface ipv4 set dns name="YOUR INTERFACE NAME" static DNS_SERVER index=2
Example :-
netsh interface ipv4 set dns name="Local Area Connection" static index2

To configure automatic DNS :

netsh interface ipv4 set dnsservers name"YOUR INTERFACE NAME" source=dhcp
Interface name is different in Windows 7 & Windows 8/10. You can check interface name from cmd by typing netsh interface ipv4 show config ( Check above image)

Thats all..

1 February 2018

How to remove Windows 10 Login Password

Removing password from your PC is not a good option for your security.Windows 10 or 8 login password removing process is different from Windows 7

Here is the process :

Press windows & R button at the same time.

Type netplwiz and press enter. You can also open it by searching netplwiz

Now select your account which you want to remove the password.

Uncheck the box "User must enter a user name and password to use this computer"

Click on Ok (You need to enter your password again for security reason)

Restart your PC to check it.

25 January 2018

Boost your system performance with disk defragmenter

Lets see what is Disk Derangement.

I found some useful definition from different website which can be helpful to understand Disk Derangement.

Disk Defragmenter is a utility in Microsoft Windows designed to increase access speed by rearranging files stored on a disk to occupy contiguous storage locations, a technique called defragmentation. Defragmenting a disk minimizes head travel, which reduces the time it takes to read files from and write files to the disk.Beginning with Windows XP, Disk Defragmenter also reduces system startup times.

Defragmentation is like cleaning house for your PC, it picks up all of the pieces of data that are spread across your hard drive and puts them back together again. Why is defragmentation important Because every computer suffers from the constant growth of fragmentation and if you don’t clean house, your PC suffers.
Disk fragmentation occurs when a file is broken up into pieces to fit on the disk. Because files are constantly being written, deleted and resized, fragmentation is a natural occurrence. When a file is spread out over several locations, it takes longer to read and write. But the effects of fragmentation are far more widespread: Slow PC performance, long boot-times, random crashes and freeze-ups – even a complete inability to boot up at all. Many users blame these problems on the operating system or simply think their computer is “old”, when hard disk fragmentation is most often the real culprit.
(Sources :

Most hard drives have spinning platters, with data stored in different places around that platter. When your computer writes data to your drive, it does so in "blocks" that are ordered sequentially from one side of the drive's platter to the other. Fragmentation happens when those files get split between blocks that are far away from each other. The hard drive then takes longer to read that file because the read head has to "visit" multiple spots on the platter. Defragmentation puts those blocks back in sequential order, so your drive head doesn't have to run around the entire platter to read a single file.
If you have a solid-state drive (SSD) in your computer, you do not need to defragment it. Solid-state drives, unlike regular hard drives, don't use a spinning platter to store data, and it doesn't take any extra time to read from different parts of the drive.
(Sources :

I think you understand what is Disk Derangement. But if you still don't then see the video of Technical Guruji.

To defragment your hard disk

Open Disk Defragmenter by clicking the Start button. In the search box, type Disk Defragmenter, and then, in the list of results, click Disk Defragmenter.

Under Current status, select the disk you want to defragment.
To determine if the disk needs to be defragmented or not, click Analyze disk. Administrator permission required If you're prompted for an administrator password or confirmation, type the password or provide confirmation.

Once Windows is finished analyzing the disk, you can check the percentage of fragmentation on the disk in the Last Run column. If the number is above 10%, you should defragment the disk.
Click Defragment disk. Administrator permission required If you're prompted for an administrator password or confirmation, type the password or provide confirmation.
(Sources : Microsoft)

You can also schedule it by clicking Turn on Schedule.

Note : File system FAT, or FAT32, it can't be defragmented.


21 January 2018

Install Endless OS inside Windows

Endless OS is a Debian based Linux derivative. It is built on top of the Linux kernel and other open source technologies (Chromium, GNOME, GRUB, GTK, Pulse Audio, Rufus, Systemd, XOrg, Yelp, and many more). Unlike most Linux distributions, it uses a read-only root file system managed by OS Tree and Flatpak for application delivery and update. The user interface is based on a highly modified GNOME desktop environment.
(Source : wikipedia)

System requirement & others details :

Click for Endless Support Centre

Download link :

To install it inside the windows OS then download from below link.

If you want an ISO image file then download from below link. (Select Download from Linux or Mac)

Lets install it inside the Windows OS..

Download the file from above link & open it.

Click on Install Endless

I am selecting Basic version here. You may select whatever you like.

You need minimum 16 Gb disk space in your C drive. Select 16 Gb and Next.

Depending on your internet speed & system performance it may take some time to download. After downloading it will automatically start installing.

After successfully installation restart your PC and select Endless OS. Every time your PC will ask you which OS to boot whenever you power on.

If you want to remove Endless OS from your system then go to Windows Uninstall center ( Program & Features) & remove it.

Thats it..Enjoy your new OS.😎😎😎😎😎😎

Create your own hosting server in Linux

First thing first ! If you have no idea about hosting then click here to know about hosting.

So..,Today I am going to write about Vesta Control Panel. Vesta control panel is a open source hosting control panel for Linux which can be use to host multiple website,Create FTP server,MySQL database,Email accounts (Email hosting),Manage DNS records etc. Lets check a demo by click here.
More details about Vesta CP can be found on there website

Features :
  • Simple and Clean graphical user interface;
  • Powerful CLI & API;
  • Secure Platform;
  • Auto updates;
  • Easy update manager;
  • Web, DNS, Database, Mail, FTP Server;
  • SSL certificates
  • Wildcard support;
  • Configuration Templates;
  • DKIM support;
  • Fast Backups;
  • System Monitoring;
  • AntiSpam / Antivirus;
Supporting Operating System & Hardware :
  • RHEL/Cent OS-5,6,7
  • Debian 7,8,9
  • Ubuntu 12.04 to 17.04
  • RAM- 512 Mb
  • HDD-20 Gb
  • CPU- 1Ghz
Installation Instruction :

Login to your server or connect your server through SSH.

# Download installation script
curl -O

# Run it

It will take few times depending on your internet speed to complete the install. After installation you will see your login details.
If your ip is then it will be Like this :
User name : admin
Pass : ghsySrwj
Open any browser and type ip address (like above example) & login with your user name/password.

There are many things to learn in Vesta CP like add a website,create a ftp account,create email accounts & more. Check my next post to Know "How to add a website in Vesta CP"

I installed in Ubuntu 15.04 for my company & its working properly.

Uninstall Vesta CP :

#Stop vesta service

service vesta stop

#Remove vesta packages and software from repository RHEL or CentOS:

yum remove vesta*
rm -f /etc/yum.repos.d/vesta.repo

#Remove from Debian/Ubuntu:

apt-get remove vesta*
rm -f /etc/apt/sources.list.d/vesta.list

#Delete data directory and cron

rm -rf /usr/local/vesta

Till then Enjoy your own website hosting panel !

15 October 2017

কিভাবে Wifi Router configuration করবেন ?

কিভাবে Wifi Router configuration করবেন ?

আমি এইখানে কোনো router configuration করে দেখাচ্ছি না|কিন্তু যদি আপনি বেসিক জিনিস টি জেনে রাখেন তাহলে যেকোনো wifi-router configure করতে পারবেন|Wifi configuration করার জন্য আপনাকে কিছু basic জিনিস শিখে রাখতে হবে |কারণ বাজারে অনেক কোম্পানি wifi তৈরী করে এবং তাদের প্রতিটার settings আলাদা হয় |এই জন্য আপনাকে wifi manual দেখতে হবে |wifi তে ১ টি ,২ টি ,4 টি বা তার বেশি port থাকতে পারে |এর মধ্যে একটা WAN port এবং বাকি গুলি LAN port থাকে |WAN port মানে যেই port দিয়ে আপনার Main InternetConnection যাবে |বাকি LAN port গুলির একটি আপনার computer এর সাথে connect থাকবে |প্রতিটি wifi এর একটি ip address থাকে configuaration করার জন্য |
এখন প্রশ্ন হচ্ছে কিভাবে router এর IP জানবেন ?
সাধারণত প্রতিটি router এর ip বা হয়ে থাকে|তবুও যদি না খোলে এই ip গুলি দিয়ে তাহলে নিচের PROCESS টি করুন|
*প্রথেমে Local Area Connection খুলুন(Local Area Connection খোলার জন্য এইখানে click করুন)
* Details এ click করুন 

*এরপর IPv4 default gateway এ তে যেই IP টি দেখাবে ,সেটি আপনার router এর IP

এই ip টি ব্রাউসার Open করে Type করতে হবে|ip টাইপ করার পর User Name এবং Password দিতে বলবে |সাধারণত user name ও password admin হয়ে থাকে|তবে কিছু ক্ষেত্রে অন্য হতে পারে|
(wifi টি configure হয়ে যাওয়ার পর এই default password মনে করে বদলে ফেলবেন)

সাধারণত প্রতিটি wifi router এ quick setup/setup router option টি থাকে|এই option এর দ্বারা আপনি router টি খুব তারাতারি setup করতে পারবেন|quick setup এ click করে connection mode select করতে হয় |অর্থাৎ আপনি static /DHCP/PPoE/Auto detect mode করবেন|এইখানে কোন option টি select করবেন সেটি depend করবে আপনার ISP কোন ধরনের পরিষেবা ব্যবহার করে|কিছু  ISP DHCP (DHCP থাকলে আপনাকে নিজে থেকে কোনো IP দিতে হবে না) ব্যবহার করে , আবার কিছু ISP static IP (static থাকলে আপনাকে manually IP বসাতে হবে যেইটি আপনার ISP আপনাকে দিয়েছে ) ব্যবহার করে ,এবং কিছু ISP PPoE (PPoE থাকলে আপনার একটি user name ও password থাকবে ) ব্যবহার করে|তাহলে mode select করে next এ click করে আপনার wifi settings আসবে|এই খানে আপনার wifi name,wifi password দিয়ে finish করলে আপনার router টি ব্যবহার করার মত উপযোগী হয়ে যাবে|Advance settings এর জন্য আপনাকে আপনার router এর ম্যানুয়াল দেখতে হবে|

Wifi তে যে জিনিস গুলি আপনাকে জানতেই হবে –

DHCP : যদি আপনি এই mode টি select করেন তবে আপনাকে wifi router এ কোনো ip address বসাতে হবে না |

Static IP : এই mode টি select করলে wifi router এ ip বসিয়ে configure করতে হবে |

PPoE (Point-to-Point Protocol over Ethernet) : যদি আপনার ISP Dial Up connection Use করে তাহলে এই mode টি select করবেন |Telephone Company গুলি এই ধরনের connection Use করে থাকে |

SSID : আপনার wifi এর যেই নামটি দিতে চান ,সেটি হলো SSID|

MAC address Filterning : ধরে নিন আপনি চাইছেন আপনার wifi এর password জানা সর্তেও আপনার wifi এর সাথে কেও কানেক্ট হতে পারবে না ,তাহলে আপনাকে এই option টি active করে রাখতে হবে |এই option টি active করে আপনি যেই ডিভাইস গুলি কানেক্ট করতে চান সুধু সেই ডিভাইস গুলির MAC allow করতে হবে |এইখানে আপনি আরো একটি option পাবেন MAC address block করার |আপনি যেই device এর MAC address টি block করবেন সেই ডিভাইস টি connect থাকলেও আপনার wifi use করতে পারবে না |

Hide SSID : যদি আপনি চান আপনার wifi টি চলবে কিন্তু কেও দেখতে পাবে না তাহলে এই option টি active করতে পারবেন |এই option টি active করার পর আপনি যদি কোনো মোবাইল কানেক্ট করতে চান তাহলে mobile wifi settings এ Add network option পাবেন|এই Add network option এ গিয়ে আপনার wifi এর নাম এবং password দিয়ে manually কানেক্ট করতে হবে|

DHCP address range : wifi এর DHCP settings এ আপনি এই option টি পাবেন|wifi এর সাথে কোনো ডিভাইস কানেক্ট করলে wifi সেই ডিভাইস টিকে একটি IP দেয়|wifi এই address range টি কিছুটা এইরকম থাকে to |এর মানে হচ্ছে 2 থেকে 254 টি IP আপনি use করতে পারবেন |যদি আপনি এই range টি কমিয়ে দেন তাহলে unlimited user আপনার wifi টি use করতে পারবেন না|

যেকোনো wifi router settings এ কোনো প্রবলেম হলে router এর মডেল দিয়ে নিচে কমেন্ট করুন|

কিভাবে Ip address computer এ বসাবেন ?

কিভাবে Ip address computer  এ বসাবেন ?

IP address configure করা এখন সবাই বলতে গেলে জানে|তবুও অনেকে আছেন যাদের এই বেপারে কোনো ধারণা নেই|তাদের জন্য এই পোস্ট টি কাজে লাগবে|
প্রথম :
IP address  বসানোর আগে আমাদের জানতে হবে কিভাবে Local Area Connection খুলবেন |
আপনি key board থেকে windows button(ctrl এবং alt button এর মাঝে থাকে windows button ) এবং R button একসাথে press করুন |একটি নতুন window খুলবে |এখানে Type করুন ncpa.cpl এবং enter press করুন |এইবার আপনি Local Area Connection এর ওপর Right click করুন ও propertise select করুন |এখান থেকে Internet Protocol Version4 এর ওপর double click করুন |
Use the following ip address select করুন এবং আপনার IP টি বসান |এরপর ok করুন |
দ্বিতীয় :
Taskbar এ যেইখানে Date/Time দেখায় সেইখানে একটি LAN এর symbol দেখতে পাবেন|এই symbol টি তে right click করুন àএর পর open network & sharing centre এ click করুন àওপরের দিকে Change adapter settings এ click করুন àএইখানে Local area connection পেয়ে যাবেন|

Local Area Connection Open করার অনেক গুলি পদ্ধতি আছে |এখানে আমি সব থেকে সুভিধার টি আলোচনা করলাম |

কোনরকম প্রশ্ন থাকলে নিচে কমেন্ট করুন |

ইন্টারনেট ,ইন্ট্রানেট,প্রক্সি এবং DNS সার্ভার


বর্তমানে ইন্টারনেট কথাটি শোনেনি এমন মানুষ খুব কম এ আছে। অনেকগুলি কম্পিউটার মিলে যখন LAN তৈরি হয় বা একটি শহরের MAN কে আমরা ইন্টারনেট বলতে পারি না। LAN,MAN কে অনেকে ইন্টারনেট বলে থাকে কৈশলগত অসঙ্গতি (Technical incompatibilities) থাকা সত্ত্বেও অনেকগুলি বিষমধর্মী (Heterogeneous) network যখন Gateway এর মাধ্যমে যুক্ত হয় world wide যোগাযোগ পরিষেবার সুবিধা দেয়, তখন সেই system কে Internetwork বা সংক্ষেপে Internet বলে। Internet হছে Network of networksঅনেকগুলি LAN যুক্ত হয়ে তৈরি হয় MANঅনেক MAN একসাথে তৈরি হয় WANএইভাবে ভিন্ন network একত্রে তৈরি হয় Internet
(1)     Email পাঠাতে পারি ও গ্রহন করতে পারি। Email ID Account তৈরি করতে পারি।
(2)    Website তৈরি ও Access করতে পারি।
(3)    News, Live TV, Video, Chatting ইত্যাদি করতে পারি।
(4)    VOIP এর মাধ্যমে ফোন করতে পারি।
(5)    Online shopping, Bank related work ইত্যাদি ও নানান ধরনের কাজ করতে পারি।
ইন্টারনেট যেহুতু LAN MAN সমূহের network, সেইজন্য internet এ সমস্ত মাধ্যম ব্যবহার হয়। যেমন – Satellite, Microwave, OFC, Radio wave, Twisted pair, Co-axial cableLAN MAN এর যাবতীয় hardware software internet এ ব্যবহৃত হয়।
INTRANET: - INTRANET হছে internet এর পরিকাঠামো ও আদর্শ ব্যবহার করে ও world wide web এর সুবিধা দিতে সাহায্য করে। Intranet হছে internet এর মতই। তবে এটি হছে private network
এটি হছে LAN অপেক্ষা বৃহত্তর।
এটি ব্যবহারের জটিলতা কম।
 এখান থেকে Internet access সম্ভব।
এটি ব্যবহারের খরচ তুলনামুলক কম।
এই ধরনের নেটওয়ার্ক এ group এর মধ্যে যোগাযোগ রাখার সুবিধা পাওয়া যায়।
এটি client server network নয়।
   Domain Name System  :- যখন আমরা কোন ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করতে চাই তখন সর্বপ্রথম তার ফোন নম্বর খুজি। আপনার ফোনে একজনের নম্বর save থাকে কিভাবে? তার নম্বর টাইপ করেন ও তারপর তার নাম লিখে save করেন। এরপর তার সাথে যোগাযোগ করার হলে তার নাম তা খুজি ফোনের মধ্যে। এইটি হছে সহজতর পদ্ধতি। কারন প্রতিটি ব্যক্তির নম্বর মনে রাখা সম্ভব নয়। Domain name system হছে এইরকম ব্যবস্থা। আমরা যেই website এর address গুলি browser type করি সেই website এর বিপরীতে Ip address খুজে নেওয়াকে বলা হয় Name resolutionInternet এ ব্যবহৃত বিভিন্ন host এর নামকরন পদ্ধতি হল Domain Name systemIP address কে নামে পরিবর্তন করাকে বলা হয় Domain Name Service বা DNSInternet এ অবস্তিত সকল host কে প্রথমে কয়েকটি zone এ বিভক্ত করা হয়ছে। একে বলা হয় TLD বা Top level Domainযেমন .com, .net, .org, .govএইসব TLD এর অধীনে থাকে বিভিন্ন Domainএকটি Domain এর অধিনে অনেক Host থাকতে পারে। নির্দিষ্ট Domain এর অধিন host সমূহের IP address সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যাবে ঐ Domain জন্য নির্দিষ্ট DNS server এ।
●  Firewall :-
      Firewall হল একটি বিশেষ Security systemযার সাহায্যে এক নেটওয়ার্ক থেকে অন্য নেটওয়ার্ক এ Data প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এক নেটওয়ার্ক থেকে আর এক নেটওয়ার্ক এ Data পরিবাহিত হলে সেটিকে firewall তার নিয়মানুসারে সেই data কে পরীক্ষা করে দেখে এবং যদি সেই data এর গন্তব্যে যাওয়ার অনুমতি আছে,তাহলে সেটিকে যেতে দেয়। আর তা নাহলে সেটিকে পরিত্যাগ করে। তিন ধরনের Firewall ব্যবহার করা যেতে পারে। 
1. Packet level firewall  2. Application level firewall  3.  Circuit level firewall
 সুবিধা :
§        Private Network কে সুরক্ষিত করা।
§       গুরুত্বপূর্ণ system গুলিকে নিয়ন্ত্রণ ও রক্ষা করা।
§       কোনো network এর অভ্যন্তরীণ গোপনীয়তা রক্ষা করা।
  Proxy Server  :-
          এটি হল application level firewall এর একটি উদাহরন। এটি HTTP অনুরোধ গ্রহন করে এবং সেগুলি অন্য protocol এ অনুবাদ করে। কোনো নেটওয়ার্ক এ একটি PC তে মোডেম বা অন্য Internet সংযোগ থাকে তবে proxy server নামক software ব্যবহার করে নেটওয়ার্ক এর জন্য সমস্ত ব্যবহারকারীরা ঐ একই ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবে। Cyber cafe তে এই পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে। Proxy server এর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ হল ব্যবহারকারীর পরিচয় নেট এ গোপন রাখা। যখন user Proxy server ছাড়া সরাসরি কোনো মাধ্যমে internet এ যুক্ত থাকে,তখন কোনো Hacker ইচ্ছা করলে সেই user কে hack করতে পারে। Proxy server যেহুতু সরাসরি সংযোগের পরিবর্তে একটি অন্তবর্তী মাধ্যম হিসাবে কাজ করে,তাই net এ তথ্য ফাঁস হতে দেয় না। Proxy server এর configuration এমন হওয়া
প্রয়জন যাতে তার নিজস্ব কোনো পরিচিতি না থাকে। একে বলে Anonymous Proxy Server

প্রচুর Proxy server রয়েছে। কিছু আছে Free ware, আবার কিছু খুব দামি। windows এর জন্য রয়েছে Microsoft Proxy Server, Winproxy, Avirt Gateway

আগের অধ্যায় BASIC SERVER KNOWLEDGE(Click করুন)

প্রথম অধ্যায় BASIC NETWORKING(Click করুন)

বেসিক সার্ভার সমন্ধে ধারোনা


Network কোন কাজে ব্যবহার করা হবে তার উপর ভিত্তি করে গড়ে তোলা হয় computer networkএকটি বাড়ি তৈরি করতে যেমন একটি plan দরকার হয় তেমন ই নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে কিছু plan দরকার হয়।
কাজের উপর ভিত্তি করে নেটওয়ার্ক কে তিন ভাগে ভাগ করা যায়।
Peer to Peer : এই নেটওয়ার্ক এ প্রতিটি user তাদের resource share করতে পারে। মানে প্রতিটি কম্পিউটার এখানে একইসাথে server workstationএই ধরনের নেটওয়ার্ক 10 জন user এর জন্য সুবিধাজনক। এই নেটওয়ার্ক তৈরি করার জন্য কোনো network operating system দরকার পড়ে না।

Client server network : এই ধরনের নেটওয়ার্ক এ একটি প্রধান Computer/Server থাকে। যার সাথে অন্যান্য কম্পিউটার যুক্ত থাকে। এই server থেকে যারা তথ্য access করতে পারবে তারা হবে clientএইজন্য একে Client server network বলে। এই নেটওয়ার্ক এ 10 জন থেকে শুরু করে 1000 জন user হতে পারে। user level access control ব্যবহার করা হয় বলে প্রতিটি user কে login করে access করতে হয়। client server network এ বিশেষ ধরনের Hardware Software ব্যবহার হয়।

Hybrid : Peer to peer network client server network একসাথে এই hybrid network গড়ে তোলে।

  Server  :-
     Server বলতে অনেকে ভাবেন কোনো বড় ধরনের কম্পিউটার। server আসলে হার্ডওয়্যার কম সফটওয়্যার বেশী বোঝায়। তবে এর অর্থ এই নয় যে হার্ডওয়্যার এর ভূমিকা কম। একটি Pc কে আমরা server হিসাবে ব্যবহার করতে পারিতবে এর জন্য server operating system দরকার পড়ে।
  Types of server  :-
File Server : File server হল নেটওয়ার্ক এ প্রতিটি user এর মধ্যে file share করে| যাতে তারা যেকোনো সময় তাদের প্রয়োজনীয় file এ প্রবেশ করতে পারে। File server hard disk এ অনেক জায়গার প্রয়োজন হয় এবং Ram capacity বেশী দরকার হয়।
Print Server : শুধুমাত্র একটি printer ব্যবহার করে যাতে print করতে পারে user রা, সেইজন্য Print server গঠনের প্রয়োজন হয়। এখানে একটি বা তার বেশী printer ও ব্যবহার হতে পারে।
Messaging Server : প্রতিটি user এর মধ্যে messaging service দেওয়ার জন্য এই server দরকার পড়ে। messaging server বিভিন্ন হতে পারে। যেমন E-mail, Groupware
Application server : User রা যাতে একটি server থেকে বিভিন্ন application ব্যব হার করতে পারে সেইজন্য এটি ব্যবহার হয়। ধরাযাক একটি office 100 টি কম্পিউটার আছে। প্রতিটি তে Ms office install করতে হবে। তাহলে অনেক সময় লাগবে। যদি application server Ms office install করা হয়, তাহলে যেকোনো user ওই server থেকে Ms office use করতে পারবে। Web server, Ftp server এই ধরনের application server
Data base server : এই Server user দের data base ব্যবহার করার সুবিধা দেয়। যেমন Oracle Server
কিছু জেনে রাখার বিষয় :-
Bandwidth: একটি মাধ্যমে অনেক সময় কি পরিমান data পরিবাহিত হতে পারে তাকে তার Bandwidth বলে। যদি কোনো cable এ সেকেন্ডে 10 Mb data পরিবাহিত হতে পারে তাহলে তার Bandwidth হবে 10 Megabits/Second বা 10 Mbpsমিডিয়ার Bandwidth যত বেশী হবে তত ভালো।
Attenuation: কোনো মিডিয়ার মধ্য দিয়ে signal কিছুদূর গিয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে। এভাবে বেশিদূর গেলে একেবারে নিস্তেজ হয়ে পড়ে। দূরতের সাথে signal কমে যাওয়াকে attenuation বলে। মিডিয়ার attenuation যত কম তত ভালো।
EMI: কোন electric signal এর আশেপাশে অন্য কোন signal থাকলে একটি আর একটি কে প্রভাবিত করে। একে electromagnetic interface বলে। যে মিডিয়ার EMI প্রতিরোধ ক্ষমতা যত বেশী, সে মিডিয়া তত ভালো।

Eavesdropping: কোন মিডিয়ার EMI পতিরোধক ক্ষমতা কম হলে সেই মিডিয়ার পাশে signal trap সেট করে signal capture করে data পুনরুধার হতে পারে। একে বলে eavesdropping

পরবর্তী অধ্যায়  INTERNET(Click করুন)

আগের অধ্যায় NETWORK CONNECTOR(Click করুন)

13 October 2017

নেটওয়ার্ক এ বিভিন্ন কানেক্টর এবং ডিভাইস

এখানে আমরা বিভিন্ন নেটওয়ার্ক ডিভাইস সম্পর্কে জানবো।

Lan Card : কম্পিউটার কে নেটওয়ার্ক এর সাথে যুক্ত করার জন্য বিশেষ ইন্টারফেসের দরকার পড়ে। LAN card এই ইন্টারফেস এর কাজ করে। কম্পিউটার operating system এর সাথে যোগাযোগ গড়ার জন্য Lan card বিশেষ software ব্যব- হার করে থাকে। যাকে বলা হয় Driverপ্রতি Lan card এর বিভিন্ন MAC address থাকে যা পরিবর্তন করা যায় না। Lan card এর সাথে আমরা RJ-45 connector ব্যবহার করে থাকি।

Node : যে কোনো নেটওয়ার্ক এ অবস্তিত সমস্ত work station কে Node বলা যেতে পারে। work station হল computer,printer,router,brouter,gateway ইত্যাদি নেটওয়ার্ক সংযোগ উপাদান সমূহ।

Host : Host বলতে নেটওয়ার্ক এ যুক্ত কম্পিউটার কে বোঝায় যার মূল কাজ নেট ব্যবহারকারীদের নেটওয়ার্ক সার্ভিস প্রদানের সুবিধা দান করা। Host Network এ মূলত server এর ভূমিকা পালন করে 

Hub : যেখানে বিভিন্ন work station থেকে আসা cable সমূহ যুক্ত হতে পারে তাকে আমরা Hub বলতে পারি। বিভিন্ন port বিশিষ্ট Hub বাজারে পাওয়া যায়যেমন- 8 Port, 16 Port, 24 Port ইত্যাদি। Hub input signal কে সমস্ত port এ সমান ভাবে ছড়িয়ে দেয়। এই Port গুলিতে সাধারনত RJ-45 connector ব্যবহৃত হয়। গঠন অনুসারে Hub কে দুভাগে ভাগ করতে পারি। Chassis Hub Stackable Hubএছাড়া তিন ধরনের Hub আছে। Passive Hub, Active Hub, Inteligent HubInteligent Hub signal কে processing,filtering ইত্যাদি করতে পারে। যার ফলে নেটওয়ার্ক এ অযথা traffic তৈরি হয় না। Managed Stackable Hub বিশেষ software ব্যবহার করে। যার দ্বারা বিভিন্ন port এর অবস্থা, কোনটি কী পরিমান Data Transfer করছে তা পর্যবেক্ষণ করা যায়।

    Repeater : বিভিন্ন Media এর মাধ্যমে Signal transmission এর সময় attenuation এর কারনে সেই signal ক্রমশ দুর্বল হতে থাকে। সেই জন্য signal কে amplify করার জন্য Repeater ব্যবহৃত হয়। রিপিটার দু ধরনের। Amplifier Signal Re-generatorAmplifier পুরো সিগনাল কে amplify করে। এটি অপ্রয়োজনীয় signal থাকলেও সেটিকে amplify করে। আবার শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় signal কে amplify করার জন্য ব্যবহার হয় signal Re-generator repeater

  Bridge : Bridge এমন একটি ডিভাইস যার মাধ্যমে দুটি নেটওয়ার্ক segment কে যুক্ত করা যেতে পারে। এটি Hub এর মতই,তবে এর কার্যপ্রণালী আলাদা। এটি প্রতিটি সেগমেন্টে বিভিন্ন ডিভাইস এর হিসেব রাখার জন্য ব্রিজিং টেবিল তৈরি করে। এতে থাকে উভয় সেগমেন্টের বিভিন্ন ডিভাইস এর MAC addressকোন data packet এর MAC address দেখে এটি সিদ্ধান্ত নিতে পারে ওই packet টি কোন অংশে পাঠানোর দরকার আছে কিনা। এই কাজ গুলি করার জন্য Bridge STP (Spanning Tree Protocol)  ব্যবহার করে।

    Switch : Switch কথাটি বল্লে প্রথমেই বাড়ির লাইট বোর্ডের switch গুলির কথা মনে পড়ে। Computer network switch আলাদা। switch আসলে একাধিক port বিশিষ্ট Bridgeকোন data frame switch এর নিকট আসলে switch সেই frame এর গন্তব্য MAC address দেখে এর নির্দিষ্ট port এ সেই frame কে পাঠিয়ে দিতে পারে। একটি switch তার সাথে যুক্ত সকল node এর MAC address এর তালিকা সংরক্ষণ করে। switch দু ভাবে কাজ করে। cut through mode এবং Store and forward modecut through mode switch এর নিকট কোন data frame এর 14 byte আসার সাথে সাথেই এটি বুঝতে পারে কোন port এ এই frame কে পাঠাতে হবে। এরফলে transmission খুব দ্রুত হয়। store and forward mode switch পুরো data frame পাওয়ার পর সেটি পড়ে switch সিদ্ধান্ত নেয় যে সেই data frame কে কোন port এ পাঠাতে হবে। এতে কিছু সময় লাগলেও এটি সুবিধাজনক। যদি দেখে কোনো data frame ক্রুটিযুক্ত তাহলে switch সেটিকে পাস না করে উৎস কম্পিউটার এ re-transmit করে।

    Router : Network device এর সবচেয়ে জনপ্রিয় হল Routerএক নেটওয়ার্ক থেকে আরেক নেটওয়ার্ক এ data পাঠানোর পদ্ধতিকে Routing বলে। এই routing এর জন্য ব্যবহৃত ডিভাইস হল Routerrouter হল bridge এর মতই ডিভাইস। কিন্তু এটি data কে অনেক জটিল ভাবে ব্যবহার করে। দুই বা ততধিক নেটওয়ার্ক কে যুক্ত করে এই Routerতবে Multiprotocol Router ও রয়েছে। router একটি ভিন্ন ডিভাইস হতে পারে। যেমন CISCO Router, বা একটি কম্পিউটার কে router হিসাবে কাজে লাগানর জন্য configure করা যেতে পারে। Linux Unix server কে Router হিসাবে ব্যবহার করে যায়।

   Brouter : Router এবং Bridge এর সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে Brouterএটি একই সঙ্গে Bridge Router এর কাজ করতে পারে।

   Gateway : Gateway হল এমন একটি ডিভাইস যা ভিন্ন ধরনের নেটওয়ার্ক সমূহ কে যুক্ত করার জন্য ববহৃত হয়। Router,Bridge,Hub,Switch এইসব ডিভাইস protocol translession এর সুবিধা দেয় না, কিন্তু Gateway এটি করতে পারে। Gateway কয়েক ধরনের হতে পারে। যেমন Address Gateway, Protocol Gateway, Application Gateway ইত্যাদি।  

পরবর্তী অধ্যায়  BASIC SERVER KNOWLEDGE(Click করুন)

আগের অধ্যায় NETWORK PROTOCOL(Click করুন)

Popular Posts